ফেব্রুয়ারির পরেই কক্সবাজার পৌর নির্বাচন

download-12.jpg

সৈয়দুল কাদের :
আগামি ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের পরেই অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন। ডিসেম্বরে পৌর নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রস্তুতি গ্রহন করা ৩২৩টি পৌরসভার তালিকায় কক্সবাজার পৌরসভার নাম নেই। তবে ফেব্রুয়ারি শেষেই কক্সবাজার পৌরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে বলে জানালেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ মোজাম্মেল হোসেন। তবে এ সংক্রান্ত কোন চিঠি নির্বাচন কমিশন থেকে প্রাপ্ত হননি বলে জানান তিনি।
২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারির পরেই অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন। স্থানীয় সরকার বিভাগের আইন আনুযায়ী মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার ৩ মাসের আগেই অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন। প্রাপ্ত তথ্য মতে ২০১১ সালের ২৭ জানুয়ারি অনষ্ঠিত হয় কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন। ৪ ফেব্রুয়ারি নির্বাচিতদের গেজেট প্রকাশিত হয়। একই বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনের কার্যালয়ে নির্বাচিতদের শপথ গ্রহনের সময় নির্ধারিত ছিল। অন্যান্য পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলররা শপথ গ্রহন করলেও কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচিত ৪ দফা সময় পরিবর্তনের পরেও শপথ গ্রহন হয়নি। ফলে আগের পৌর পরিষদ দীর্ঘ আড়াই বছর বাড়তি দায়িত্ব পালন করে। এতে শপথ গ্রহনের দাবীতে ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারী নির্বাচিত প্রতিনিধিরা কক্সবাজারে হরতাল পালন করে। পরে ২০১৩ সালের ২০ জুলাই নির্বাচিত পৌর মেয়র ও কাউন্সিলর বৃন্দদের শপথ বাক্য পাঠ করান কক্সবাজারের তৎকালীন জেলা প্রশাসক । এর পরে মেয়র সরওয়ার কামালের বিরুদ্ধে নাশকতার একাধীক মামলা ও দুর্নীতির মামলার অভিযোগপ্রত্র আদালত গ্রহন করায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় মেয়র সরওয়ার কামালকে সাময়িকভাবে বহিস্কার করে। পরবর্তীতে মন্ত্রণালয় ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর প্যানেল মেয়রকে দায়িত্ব গ্রহন করতে চিটি ইস্যু করেন। প্যানেল মেয়র-১ জিসান উদ্দিন ও প্যানেল মেয়র-২ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা থাকায় দায়িত্ব ভার নিতে পারেননি। প্যানেল মেয়র-৩ কুহিনুর ইসলাম বর্তমান মেয়র মাহবুবুর রহমান চৌধুরীকে সমর্থন করায় মন্ত্রণালয় মাহবুবুর রহমান চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসাবে দায়িত্ব প্রদান করেন। ১ ডিসেম্বর তিনি ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসাবে দায়িত্বভার গ্রহন করেন। তিনি অদ্যবদি দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।
এ দিকে এখনো চুড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ না হওয়ায় পৌরসভার মোট ভোটারের সংখ্যা নিশ্চিত করেন নি জেলা নির্বাচন অফিস। তবে ইতোমধ্যে কক্সবাজার পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ৬৭ হাজার ৫৭৭ জন। এতে পুরুষ ভোটার ৩১ হাজার ২৩৪ জন ও নারী ভোটার ৩৬ হাজার ৩৪৩ জন। তবে চুড়ান্ত ভোটার তালিকায় ভোটার সংখ্যা আরো বাড়বে বলে জানায় নির্বাচন অফিস।
এদিকে যথা সময়ে পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠানের পক্ষেই পৌরবাসীর মতামত। পৌরবাসীর মতে নির্বাচন বিগত সময়ে যথা সময়ে না হওয়ায় প্রয়োজনীয় উন্নয়ন কক্সবাজারে হয়নি। কক্সবাজার সোসাইটির সভপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন জানান, কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন ব্যবস্থা একাধিকবার ব্যাহত হওয়ায় উন্নয়নে পিছিয়ে পড়েছে পর্যটন নগরী কক্সবাজার। নির্বাচিত মেয়র ও চেয়ারম্যাররা দূর্নীতির কারণে দায়িত্ব পালন করতে না পারায় উন্নয়ন থমকে দাড়িয়েছে কক্সবাজার পৌরসভায়। তবে এখন উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ফিরে এসেছে।
কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে একজন সিনিয়র শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, যারা এলাকার উন্নয়ন চান তারা কোন দিনও নির্বাচনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে পারেন না। পৌরবাসীকে এমন একজন নেতা নির্বাচিত করতে হবে যিনি দূর্নীতিমুক্ত কক্সবাজার পৌরসভা পরিচালনা করবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top