স্বরূপে ফিরতে শুরু করেছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত

cox-tourism-94059.jpg

কক্সবাজার রিপোর্ট :

পর্যটন মৌসুম শুরুর দেড় মাস পর অবশেষে স্বরূপে ফিরতে শুরু করেছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত শহর কক্সবাজার। রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কার কারণে মৌসুমের শুরুতে পর্যটকরা না আসলেও এখন সমুদ্রের উষ্ণতার খোঁজে কক্সবাজারমুখী হচ্ছেন পর্যটকরা। তবে, নিরাপত্তা জোরদারের পাশাপাশি পর্যটন স্পটগুলোতে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ সম্পূর্ণ বন্ধের দাবি পর্যটন সংশ্লিষ্টদের। আর পর্যটকদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েনসহ বেশকিছু পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে টুরিস্ট পুলিশ।

অক্টোবর মাস থেকেই সৈকতের কক্সবাজারে শুরু হয় পর্যটন মৌসুম। কিন্তু এবার মৌসুমের শুরু থেকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিরাপত্তার কারণে মুখ ফিরিয়ে নেন পর্যটকরা। ফলে বছরের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে কক্সবাজার সৈকত পর্যটক শূন্য থাকায় হতাশা ছিলো পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের মধ্যে। তবে দেড় মাস পর আবারো পর্যটন মৌসুমের স্বরূপে ফিরতে শুরু করেছে সমুদ্র সৈকত। সমুদ্রের উষ্ণতার খোঁজে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। আর তাদের আনন্দ ও হৈ-হুল্লোড়ে মাতোয়ারা সৈকতের সবক’টি পয়েন্ট।

পর্যটকরা বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুর কারণে আমরা আসিনি এতদিন। অবশেষে আসলাম। যেহেতু এটা পর্যটন সিজন তাই নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভাল থাকবে বলে আমরা আশা করি। এখানে আসতে পেরে আমাদের খুব ভাল লাগছে।

কক্সবাজারে পর্যটকের আনাগোনা বাড়ায় খুশি পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। তবে পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে পর্যটন স্পটগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের দাবি তাদের।

হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের মুখপাত্র বলেন, পর্যটকরা আসতে শুরু করেছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভাল থাকলে আশা করি সামনের দিনগুলোতে আরো পর্যটক আসবে।

ট্যুরিস্ট পুলিশের কর্মকর্তা জানালেন, পর্যটন স্পটে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা জোরদারের পাশাপাশি আগামী মাসে পুলিশের সদস্য বাড়ানো হচ্ছে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার বলেন, পর্যটকদের আনাগোনা বেড়ে যাওয়া আমরা টহল অব্যাহত রেখেছি। পাশাপাশি আমাদের কিছু সদস্য যুক্ত হবে। এতে করে আমরা আরো বেশি নিরাপত্তা জোরদার করতে পারবো।

পর্যটন সংশ্লিষ্টদের দেয়া তথ্য মতে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে কক্সবাজারে গত দেড় মাস পর্যটক না আসায় পর্যটন ব্যবসায় ক্ষতি হয়েছে প্রায় দু’শো কোটি টাকা।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top