শীতলপাটিকে বিশ্ব ঐতিহ্যের স্বীকৃতি দিলো ইউনেস্কো

sheetal-pati-sunamganj-95219.jpg

কক্সবাজার ডেস্ক :

সিলেটের ঐতিহ্যবাহী শীতলপাটিকে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার ঘোষণা এলো ইউনেস্কোর তরফ থেকে।

ইউনেস্কোর নির্বস্তুক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সংরক্ষণের জন্য আন্তঃরাষ্ট্রীয় কমিটি বুধবার শীতলপাটির বয়নপদ্ধতির স্বীকৃতির ঘোষণা দিয়েছে বলে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর জানিয়েছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার জেজু দ্বীপে সোমবার থেকে শুরু হয়েছে ওই কমিটির বৈঠক, চলবে শনিবার পর্যন্ত। কমিটির আলোচ্যসূচির মধ্যে অন্যতম ছিল ২০১৭ সালের নির্বস্তুক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকা অনুমোদন।

বাংলাদেশের শীতলপাটির বয়নশিল্পের সঙ্গে ১৯টি দেশের ১৫টি নৈর্ব্যক্তিক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সদ্য অনুমোদিত তালিকায় স্থান পেয়েছে।

এর আগে গত বছর চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রাকে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য স্বীকৃতি দিয়েছিল ইউনেস্কো।

এ ছাড়া গত অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণকে বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি দেয় জাতিসংঘের এই সংস্থাটি।

দক্ষিণ কোরিয়ায় চলমান বিশ্ব ঐতিহ্য সম্মেলনে জাতীয় জাদুঘরের সচিব মোহাম্মদ শওকত নবীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল এ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন।

প্রতিনিধি দলে রয়েছেন সিলেট অঞ্চলের দুজন বিখ্যাত পাটিকর গীতেশচন্দ্র ও হরেন্দ্রকুমার দাশ। সম্মেলনস্থলে তারা শীতলপাটি তৈরির বুননশৈলী তুলে ধরেন।

একই সঙ্গে বাংলাদেশ থেকে নিয়ে যাওয়া উন্নতমানের শীতলপাটি প্রদর্শন করা হচ্ছে সেখানে।

এদিকে শীতলপাটির ঐতিহ্য তুলে ধরতে মঙ্গলবার থেকে জাতীয় জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারিতে ৯ দিনের বিশেষ প্রদর্শনী চলছে।

বৃহত্তর ঢাকা বিভাগ, বরিশাল ও চট্টগ্রামের কিছু অংশে এই বেত গাছ জন্মালেও শীতলপাটির বুননশিল্পীদের অধিকাংশের বসবাস সিলেট বিভাগে। বৃহত্তর সিলেটের ১০০ গ্রামের প্রায় ৪ হাজার পরিবার সরাসরি এই কারুশিল্পের সঙ্গে জড়িত রয়েছে বলে জাতীয় জাদুঘর এক সমীক্ষায় জানিয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top