গোলদীঘিরপাড় মসজিদে বিএনপি নেতার হাতে শিশু বলাৎকার

gg-1.jpg

কক্সবাজার রিপোর্ট :

কক্সবাজারে মসজিদের ভেতরে বিএনপি নেতার হাতে ১৩ বছরের এক শিশু বলাৎকারের শিকার হয়েছে। গত ১৯ নভেম্বর শহরের গোলদীঘির পাড় মসজিদে এ ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি কাউকে না জানাতে বিভিন্নভাবে শিশুটির পরিবারকে হুমকি দেয়ায় ঘর থেকে বের হতে পারছেনা। আজ বুধবার জোহরের নামাজের পর বলৎকারের স্বীকার শিশুর পিতা মুসল্লিদের বিষয়টি জানালে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। বলৎকারের ঘটনাটি ফাঁস হয়েগেলে আত্মগোপনে চলে যায় জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবি সহকারী সমিতির সাধারন সম্পাদক কলিম উল্লাহ।
বলৎকারের স্বীকার শিশুটির পিতা কক্সবাজার শহরের ঘোনার পাড়ার নাজির হোসেন অভিযোগ করেছেন, তার ছেলে মোহাম্মদ আনোয়ার ছোট বেলা থেকে শহরের গোলদীঘির পাড় মসজিদের মক্তবে আরবী শিক্ষা নেয়। বিগত ৪ বছর ধরে সে ঐ মসজিদে খাদেম হিসেবে কাজ করে আসছিল। কিন্তু গত ১৯ নভেম্বর ঐ মসজিদের এক নিয়মিত মুসল্লী কলিম উল্লাহ তার ছেলেকে মসজিদের ২ তলায় জোরপূর্বক বলৎকার করে।
নজির হোসেন জানান, মসজিদ থেকে বাসায় আসার পর তার শিশু সন্তান আনোয়ার মসজিদের ভেতর বলৎকারেরর স্বীকার হওয়ার কথা জানায়। সাথে সাথে তিনি তার শিশুকে বলৎকারকারী কক্সবাজার জাতিয়তাবাদি আইনজীবি সহকারী সাধারন সম্পাদকের কলিম উল্লাহর কাছে যায়। কলিম উল্লাহ তার আরো ৩ জন সহযোগীকে নিয়ে ঘটনাটি কাউকে না জানার হুমকি দেয়। বিষয়টি জানাজানি করলে তাকে ও তার শিশু পুত্রকে হত্যার হুমকি দেয়।
ঐ ঘটনার পর থেকে ছাত্রদল-যুবদলের ওয়ার্ড পর্যায়ের কয়েকজন নেতাকর্মী কলিম উল্লাহ’র পক্ষে তাদের বাসায় গিয়ে তাদের হুমকি দিয়ে আসছে বলে জানিয়েছেন শিশুটির চাচা নূর হোসেন।
মোহাম্মদ সরওয়ার নামের ঐ মসজিদের এক নিয়মিত মুসল্লি জানিয়েছেন, মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে একটি প্রভাবশালী মহল। কিন্তু ছেলেটির বাবা আজ জোহরের নামাজের পর মুসল্লীর কাছে তার ছেলের সাথে ঘটে যাওয়ার ঘটনার সবাইকে জানালে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পাশাপাশি মসজিদ কমিটির কাছেও বিচার চান তিনি।
এবিষয়ে জানতে চাইলে গোলদীঘিরপাড় মসজিদ কমিটির সভাপতি মুফতী মোর্শেদ জানান, বিষয়টি আজ আমরা জানতে পেরেছি। কলিম উল্লাহর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রণজিত কুমার বড়–য়া জানান, গোলদিঘির পাড় মসজিদে বলৎকারের বিষয়টি কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তবে এবিষয়ে অভিযুক্ত বিএনপি নেতার মুঠোফোনে একাধিকভার চেষ্টা করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। পরে তার বাসায় ও অফিসে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top