শত বর্ষে কুতুবদিয়া থানা

Thana-Pic.jpg

এম. এ মান্নান :
দেড় হাজার বছরের পুরনো দ্বীপ কক্সবাজারের কুতুবদিয়া বঙ্গোপসাগরের মাঝে এটি সাগর কন্যা নামে খ্যাত। ব্যবসা-বানিজ্যে সমূদ্রে জাহাজ চলাচলে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারের কাছে এ দ্বীপ ছিল অতি গুরুত্বপূর্ণ। যে কারণে ১৮৪৬ খ্রিষ্টাব্দে ব্রিটিশ সরকার দৃষ্টি নন্দন বিখ্যাত বাতিঘর নির্মাণ করেন। ইতিহাসে এ “বাতিঘর” নামেই কুতুবদিয়া পরিচিত। বিখ্যাত আউলিয়া হজরত কুতুব উদ্দিন (রহ:) এর নামে দ্বীপ কুতুবদিয়ার নামকরণ হয়েছে বলে কথিত রয়েছে। দ্বীপের আইন-শৃংখলা,শান্তি,প্রগতি রক্ষার প্রয়োজনে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার এ দ্বীপে ১৯১৭ সালে পুলিশ ষ্টেশন ( থানা) স্থাপন করেন। থানা প্রতিষ্ঠার সুনির্দিষ্ট তারিখ জানা না গেলেও ইতিহাসবিদদের মতে ১৯১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় কুতুবদিয়া থানা। আর চলতি বছর দ্বীপের আইন শৃংখলা,শান্তি,সৌহার্দ বজায়ে ১০০ বছর পূর্ণ হলো থানা প্রতিষ্ঠার।
থানা প্রতিষ্ঠার পর থেকে এক‘শ বছরে ৩৫ জন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) দায়িত্ব পালন করেছেন। ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের অনেকেই পুলিশ প্রশাসনের ভ’মিকায় প্রশংসা নিয়ে গেছেন। যাদের মধ্যে খোদা বক্স আকন্দ, মাঈন উদ্দিন ভ’ইয়া,নেসার আহমেদ সহ বর্তমান ওসি মোহাম্মদ দিদারুল ফেরদাউস উল্লেখযোগ্য। সরকারি দায়িত্ব পালনে ওসি আসেন ওসি যান। তবে এক‘শ বছর যেমন উত্তীর্ণ কুতুবদিয়া থানা, তেমনি শতবর্ষের বর্তমান সময়ে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জনে ব্যতিক্রম ভ’মিকা নেন ওসি দিদারুল ফেরদাউস। রাতারাতি গজিয়ে ওঠা ইয়াবা ব্যবসায়ি, জলদস্যু আটকে ইতিমধ্যে তিনি সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।যার দরুণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে অবৈধ ইয়াবা ব্যবসা ও জলদস্যু উৎপাত।
অপর দিকে থানার শত বর্ষ পূর্তির বছরে কুতুবদিয়াকে পর্যটন বিকাশে মহা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন বর্তমান উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা সুজন চৌধুরী। অতীতে কেউ এটি হাতে নেননি। বিশাল বাজেটের পর্যটন দ্বীপ গড়তে অর্থাৎ বাস্তবায়নে ইতিমধ্যে তিনিও অনেকটা সমর্থ হয়েছেন। থানার শুভ শতবর্ষকে উদ্যাপনের লক্ষ্যে আগামী ৩০ ডিসেম্বর (শনিবার) নানা আয়োজন হাতে নিয়েছেন দু‘কর্মকর্তা।
থানার ভারপ্র্প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দিদারুল ফেরদাউস বলেন,কুতুবদিয়া থানা শতবর্ষ পূর্তিতে স্মরণীয় করতে দিনব্যাপি ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। র‌্যালি,আলোচনা সভা,মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,নাটক,বর্ণিল আতশবাজি,আলোকজ্জল ইত্যাদি থাকছে।
এ ছাড়া দেশ-বিদেশে সাগর কন্যা কুতুবদিয়াকে পর্যটন বিকাশের দ্বার তুলে ধরতে দ্বীপের বিভিন্ন আকর্ষনীয় স্পট তুলে ধরে উপজেলা নির্বাহি অফিসার একটি স্মরণিকা প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জানান তিনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top