২ দিনে ৯ ছিনতাইকারী গ্রেফতার শহরকে ছিনতাইমুক্ত করতে বিশেষ অভিযান শুরু

Legel-paper-26.08.1-3.docwy_.jpg

বিশেষ প্রতিবেদক :
শহরকে ছিনতাইমুক্ত করতে বিশেষ অভিযান শুরু করেছে সদর থানা পুলিশ। গতকাল বিকাল সাড়ে ৪ টা থেকে ওই অভিযান শুরু হয়ে। গতকাল বিকেল থেকেই শহরের অলিগলি, পাহাড়ী জনপদ, ছিনতাইকারীদের আস্তানায় হানা দিয়েছে পুলিশের সেই দলটি। তবে এ পর্যন্ত রাত (১০) টা পর্যন্ত কয়জনকে আটক করা হয়েছে তা না জানালেও গত দুইদিনে ৬ ছোরা , মুখোশ ও লোহার রড সহ ৯ জনকে আটক করেছে বলে স্বীকার করেছে। তারমধ্যে গতকাল ভোরে শহরের বাস টার্মিনালস্থ ঝিলংজা কৃষি খামারের উত্তর পাশে নারিকেল বাগান থেকে ৫টি ছোরা, ৪টি মুখোশ ও ৪টি লোহার রড সহ ৫জনকে গ্রেফতার করে এবং ২৯ ডিসেম্বর ভোরে কলাতলীর সুগন্ধা মোড় ও আলীর জাহাল থেকে ধারালো ছোরা সহ ৪জনকে গ্রেফতার করা হয়।
গতকালের ধৃতরা হলেনকক্সবাজার পৌরসভার স্টেডিয়াম পাড়ার মৃত মৌলানা মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে মোঃ জসিম উদ্দিন (২৫), বৈদ্যঘোনা এলাকার মৃত আঃ সালাম এর ছেলে মোঃ সেলিম (২৮), কলাতলী আদর্শ গ্রামের মৃত দিল মোহাম্মদ এর ছেলে মোঃ জাবেদ, উত্তর ফাসিঁয়াখালী, ইসলামাবাদ এলাকার মোঃ আলম এর ছেলে মোঃ ইব্রাহীম (২০), নতুন মহাল চৌফলদন্ডী এলাকার আঃ ছবির এর ছেলে মোঃ নুরুল হক।
এছাড়া গত ২৯ ডিসেম্বর পৃথক অভিযানে পেশকার পাড়ার আবদুল মোনাফ সওদাগর এর ছেলে আলী আজগর, চৌফলদন্ডীর দক্ষিন মাইজ পাড়া এলাকার মোজাহের আহম্মদ এর ছেলে নুরুল হুদা @ লুদা মিয়া, মধ্যম নাপিতখালী এলাকার মনজুর আলম এর ছেলে মোঃ রুবেল, এবং দিল মোহাম্মদ এর ছেলে মোঃ জুবায়ের কে গ্রেফতার করা হয়। এব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ রনজিত কুমার বড়–য়া জানান, ধৃতদের বিরুদ্ধে ডাকাতি, ছিনতাই, দস্যুতার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
তিনি আরো জানান, থার্টিফাস্ট নাইট ও পর্যটন মৌসুমকে কেন্দ্র শহরকে ছিনতাই মুক্ত করতে বিশাল পরিসরে মাঠে নেমেছে সদর থানা পুলিশের একাধিক টিম। তিনি নিজেও রয়েছেন একটি টিমের নেতৃত্বে। তাই এ পর্যন্ত সব টিম কয়জনকে আটক করেছে বলা সম্ভব নয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top