সাবেক এমপি আলমগীর ফরিদের বাড়ীতে পুলিশের তল্লাশি

111.jpg

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
কক্সবাজার-২ (মহেশখালী-কুতুবদিয়া) আসনের সাবেক এমপি ও বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আলমগীর ফরিদের বাড়িতে গতকাল বৃহস্পতিবার ৪ জানুয়ারি রাত সাড়ে আটটায় অকারণে আকস্মিক হামলা ও ভীতি সঞ্চারের অপচেষ্টা চালিয়েছে মহেশখালী পুলিশ। এর আগে বড় মহেশখালী নতুন বাজারসহ নানান জায়গায় জনমনে ভয় ছড়ানোর চেষ্টা করেন তারা। আলমগীর ফরিদ দ্বীপাঞ্চলের অপরাজিত ও সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা। সেইসাথে তিনি অত্যন্ত শান্তিপ্রিয় ও গঠনমূলক চেতনার অধীকারি রাজনীতিবিদ। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কোন নজির তিনি অতীতে রাখেননি। তিনি একজন জনবান্ধব ও জননন্দিত সাবেক জনপ্রতিনিধি। ওনার মতো ন্যায়বান একজন সম্মানী নাগরিকের সাথে এহেন আচরণ অত্যন্ত গর্হিত ও ক্ষমার অযোগ্য। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় যাঁদের বেতন-ভাতা দেয়া হয় তাঁদের দ্বারা এই নির্লজ্জ কাজ সংঘটিত হতে দেখে আমরা হতবাক, চরমভাবে ক্ষুব্ধ। আমরা পুলিশের এই হীন আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। দ্ব্যার্থহীন ভাবে বলতে চাই, এভাবে আলমগীর ফরিদকে মুছে ফেলা যাবে না। বরং দিনদিন তাঁর গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। আগামী জাতীয় নির্বাচনে এ বক্তব্য প্রমাণ হবে ইনশাআল্লাহ। আমরা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি যুবদল, ছাত্রদল ও সকল অঙ্গ সংগঠন এবং মহেশখালী-কুতুবদিয়ার সর্বস্তরের জনতার পক্ষে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করেছেন মহেশখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি রুহুল কাদের বাবুল, সাধারণ সম্পাদক এড. সিরাজুল হক রানা, পৌর বিএনপির সভাপতি এড. হামিদুল হক, সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন রতন, উপজেলা যুবদল সভাপতি এড. ফারুক ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক আনচার উল্লাহ বিএ, উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক আ.স.ম. জাহেদুল হক নাহিদ, যুগ্ম আহবায়ক আছাদ উল্লাহ হেলালী প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top