বিএনপির শুভদিন আসছে হতাশ হবেন না-লুৎফর রহমান কাজল

BNP-1.doc_n.jpg

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির মৎস্যজীবি বিষয়ক ও কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সাবেক এমপি লুৎফর রহমান কাজল বলেছেন, সামনে বিএনপির শুভদিন আসছে। আগামী নির্বাচনে গণরায়ে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে। কারণ দেশের ৮০ ভাগ মানুষ বিএনপিকে ভোট দেয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। তাই বিএনপির নেতাকর্মীদের হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই। আপনারা হতাশ হবেন না। শুধু নির্বাচনের প্রস্তুতি নিন।
কক্সবাজার জেলা বিএনপির নবগঠিত নির্বাহী কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। শুক্রবার ১২ জানুয়ারি সকাল ১০টায় কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র কনফারেন্স হলে জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক হুইপ শাহজাহান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক আকতার চৌধুরীর সঞ্চালনা এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় লুৎফর রহমান কাজল বলেন, ২০১৮ সাল বিএনপির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও কঠিন সময়। এই বছরের কাজের দক্ষতা ও সফলতার উপর বিএনপির অনেক কিছু নির্ভর করছে। আগামীর নির্বাচনের প্রস্তুতির জন্য আমাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। নির্বাচনে জয়ের জন্য দলকে সুসংগঠিত করতে হবে। দলকে সংগঠিত করার মাধ্যমে সকল জনগণকে বিএনপির দিকে টানতে হবে।
আওয়ামী লীগের সময় শেষ উল্লেখ করে লুৎফর রহমান কাজল বলেন, ‘পৃথিবীতে সব কিছুর একটা সময় থাকে। এক সময় তা শেষ হয়ে যায়। আওয়ামী লীগের সময়ও শেষ প্রান্তে। এটা তাদের নেতাদের হতাশ বক্তব্যে উঠে আসছে। এখন আওয়ামী লীগ নেতাদের সুর নরম হয়ে গেছে। এটা এখন স্পষ্ট হয়ে গেছে, আগামী নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে এবং খালেদা জিয়া চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হবেন।’
বিএনপির এই কেন্দ্রীয় নেতা আরো বলেন, ‘কক্সবাজার জেলা বিএনপি নবগঠিত কমিঠি অত্যন্ত শক্তিশালী হয়েছে। এই কমিটিতে যারা স্থ’ান পেয়েছেন তারাও গ্রহণযোগ্য, পরিশ্রমী ও জনপ্রিয় নেতা। আমি আশা রাখবো আপনাদের এই কমিটি কক্সবাজার জেলা বিএনপিকে এক নব দিগন্তে নিয়ে যাবে। যার ফলাফল হবে আগামী নির্বাচনে জেলার চারটি আসনেই বিএনপির প্রার্থীকে জয় করা।’
সাংগঠনিক ভিত্তির কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘বিএনপির নেতাকর্মীদের পরস্পরের মধ্যে আরো বেশি সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বপুর্ণ সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে এবং দলীয় শৃঙ্খলা সবাইকে অনুসরণ করতে হবে। রাজনৈতিক সম্পর্কের পাশাপাশি পারিবারিক, সামাজিক ও অন্যান্য সম্পর্কগুলো আরো পোক্ত করতে হবে।’
সভাপতির বক্তব্যে শাহাজাহান চৌধুরী ওয়ার্ড পর্যায় থেকে ইউনিয়ন, ইউনিয় থেকে উপজেলা/ পৌরসভার নির্বাহী কমিটিগুলো নিয়মিত সভার মাধ্যমে সাংগঠনিক কার্যক্রমকে আরো বেশি গতিশীল করার আহ্বান জানান। পাশাপাশি বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কমিটিগুলো পুর্নগঠনের কার্যক্রম জোরদার করতে হবে। কাটায় সকাল ১০টায় নির্বাহী কমিটির সভায় সকল কর্মকর্তা ও সদস্যরা উপস্থিত হলে সকলকে মূলফটকে অভ্যর্থণা জানান দপ্তর সম্পাদক ইউসুফ বদরী।
সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এটিএম নূরুল বশর চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এড. শামীম আরা স্বপ্না, সহ-সভাপতি এনামুল হক, এম. মমতাজুল ইসলাম, মিজানুর রহমান চৌধুরী খোকন মিয়া, এড. নুরুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক জামিল ইব্রাহিম চৌধুরী, সহ-সংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ও মোক্তার আহামদ, সহ-প্রচার সম্পাদক এম মোবারক আলী, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক রাসেদুল হক রাসেল, নির্বাহী সদস্য সরওয়ার জাহান চৌধুরী, অধ্যক্ষ এম মঞ্জুর, এড. মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, এড. আবদুল কাইয়ুম, এড. শাহাব উদ্দীন, ছৈয়দ নূর, সিরাজুল হক ডালিম, মোস্তফা কামাল, মফিদুল আলম, আবদুল করিম চেয়ারম্যান, ফরিদা ইয়াসমিন, জাহানারা বেগম, তাহেরা আকতার মিলি, ডা. আবদুল মোতালেব, এড. খোরশেদ আলম চৌধুরী খোকন।
সভার শুরু পবিত্র কোরআন তেলোয়াত করেন জেলা বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মাস্টার জুবাইর আহামদ। সদ্য প্রয়াত জেলা নির্বাহী কমিটির সদস্য মাওলানা আকতার কামাল চৌধুরী ও এস.এম ফেরদৌস আহামদের অকাল মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব করা হয় এবং তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মাওলানা আবদুল মান্নান। সভায় নির্বাহী কমিটির সকল কর্মকর্তা ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top