পেকুয়ায় হামলায় নারী গ্রাম পুলিশ আহত

20180406_185639.jpg

পেকুয়া প্রতিনিধি :

পেকুয়ায় মাদকসেবীর হামলায় এক নারী গ্রাম পুলিশ আহত হয়েছে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড পশ্চিমকুল সেকান্দর পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। আহত গ্রাম পুলিশের নাম রুজিনা বেগম(৩৭)। তিনি ওই এলাকার নুর আহমদের স্ত্রী ও মগনামা ইউপির অধিনে কর্মরত গ্রাম পুলিশ। খবর পেয়ে মগনামা ইউপির মহিলা সদস্য ফরজানা শহিদ মুন্নি আহত গ্রাম পুলিশকে দেখতে যায়। এ সময় মগনামা ইউপির কর্মরত সকল গ্রাম পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। এমনকি গ্রাম পুলিশ সদস্যরা এ ন্যাক্কারজনক ও বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে ফেটে পড়ে। তারা ওই দিন বিকেলে পেকুয়ার ইউএনও ওসিকে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে হামলার বিষয়টি অবহিত করেন। অভিযোগে জানা যায়, ওই দিন রুজিনা তার বসতভিটায় শ্রমিক দিয়ে মাটি কাটাচ্ছিলেন। এ সময় একই এলাকার মৃত চাঁদ মিয়ার ছেলে ছাবের আহমদ, তার পুত্র শাহাদাত কবির, শাকের উল্লাহ, মৃত ছৈয়দ নুরের ছেলে আবদুল মালেক সহ দুবৃর্ত্তরা রুজিনা বেগমকে হামলা চালায়। উত্তেজিত লোকজন ধারালো অস্ত্র স্বস্ত্র নিয়ে রুজিনার বসতবাড়িতে হানা দেয়। এ সময় লাঠি ও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে তাকে গুরুতর জখম করে। এক পর্যায়ে তারা এ নারী গ্রাম পুলিশকে চোখে আঘাত করে। এ সময় তাকে টানা হেচড়াও করা হয়। এ সময় রুজিনার পরনে ইউনিফর্ম ছিল। সেটি ছিড়ে ফেলা হয়। মগনামা ইউপির নারী সদস্য ফারজানা শহীদ মুন্নি জানায়, মেয়েটিকে নিষ্ঠুরভাবে পিটানো হয়েছে। রুজিনা বেগম বলেন, তারা মাদক ব্যবসায় জড়িত। অনেকবার পুলিশের তাড়া খেয়েছে। আমাকে অনেক আগে থেকে টার্গেট করে। মাদক ব্যবসায় আমি নাকি বাধা দিয়ে থাকি। এ জন্য এরা আমাকে প্রতিপক্ষ মনে করে। আমাকে মেরে ফেলাতে এ ধরনের বর্বর হামলা চালানো হয়। মগনামা ইউপির দফাদার আলমগীর বলেন, আমরা এ হামলার প্রতিবাদ জানাই। লিখিত এজাহার থানায় প্রেরন করা হয়েছে। ওসি ও ইউএনওকে বিষয়টি আমরা অবহিত করি। তবে ঘটনার বিষয়ে অভিযুক্ত পক্ষের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Top