অশ্রু চোখে শেষ মিলন

us-bangla-victims-19032018-00010015.jpg

কক্সবাজার ডেস্ক :
ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে চিৎকার করে কাঁদছিলেন সেলিনা পারভীন ঝর্ণা; একজন পুলিশ কর্মকর্তা তাকে একটি ফরমে সই করতে অনুরোধ করছিলেন, কিন্তু তাতে রাজি হচ্ছিলেন না ষাটোর্ধ্ব এই নারী। সই করলেই যে তাকে নিজের ছেলে রকিবুল হাসানের লাশ বুঝে নিতে হবে!
সন্তানহারা এই মায়ের মত আরও অনেক স্বজনের আহাজারিতে সোমবার বিকালে ভারী হয়ে উঠছিল ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামের বাতাস।
ঢাকা আর্মি স্টেডিয়ামের পশ্চিম গ্যালারির সামনে সাদা শামিয়ানায় ছাওয়া মঞ্চটি সাজানো ছিল ফুল দিয়ে। সারি বেঁধে তাতে সাজানো ছিল সারি সারি কফিন।
ঠিক এক সপ্তাহ আগে নেপালে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ২৩ জনের মরদেহ দেশে আনার পর ওই স্টেডিয়ামেই তা হস্তান্তর করা হয় পরিবারের সদস্যদের কাছে।
আর্মি স্টেডিয়ামে লাশ এসে পৌঁছার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত প্রকৌশলী রকিবুল হাসানের মা। রকিবুলের স্ত্রীও আহত হয়েছেন এই দুর্ঘটনায়। আর্মি স্টেডিয়ামে লাশ এসে পৌঁছার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত প্রকৌশলী রকিবুল হাসানের মা। রকিবুলের স্ত্রীও আহত হয়েছেন এই দুর্ঘটনায়। সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার রকিব তার স্ত্রী ইমরানা কবির হাসিকে সঙ্গে নিয়ে গত ১২ মার্চ বেড়াতে যাচ্ছিলেন নেপালে। কাঠমান্ডুর ত্রিভুভন বিমানবন্দরে ইউএস বাংলার ওই উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে আরও ৪৮ জনের সঙ্গে রকিবের মৃত্যু হলেও প্রাণে বেঁচে যান হাসি।
রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হাসির অবস্থা এখনও ভালো নয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে নেওয়া হয়েছে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে।
সোমবার বিকালে স্বজনদের সঙ্গে আর্মি স্টেডয়ামে এসে রকিবের মা কাঁদতে কাঁদতে বার বার বলছিলেন, “আমার একটাই ধন ছিলি তুই, আমাকে না বলে চলে গেলি! আমার আর কিছু থাকল না গোৃ।”
নয় বছর আগে স্বামীকে হারানো এই নারী এখন পড়েছেন বড় অসহায়ত্বের মধ্যে।
তার ভাইয়ের স্ত্রী শাহী নূর বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, রকিবদের গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জে। রকিবের একটি বোন আছে, কিন্তু সেও থাকে বিদেশে।
আর্মি স্টেডিয়ামের গ্যালারির আরেক অংশে বসে তখন ডুকরে কাঁদছিলেন ইউএস-বাংলা দুর্ঘটনায় নিহত আঁখি মনির মা হাসিনা বেগম।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরের রফিকুল ইসলাম পেশকারের মেয়ে আঁখির সঙ্গে গত ৩ মার্চ যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী মিনহাজ বিন নাসিরের বিয়ে হয়। বিয়ের ১৩ দিনের মাথায় হানিমুনে নেপালে যাওয়ার পথে ইউএস-বাংলার ওই উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় তাদের।
আঁখির মা কাঁদতে কাঁদতে বলেন, “আমার একমাত্র মেয়ে। আমার অনেক আদরের ছিলও। সুখ, দুঃখ সবকিছু ওর সঙ্গে শেয়ার করতাম। প্রত্যেকটা কাজ ওর সঙ্গে শেয়ার করতাম। ও অনেক কঠিন জিনিস সহজে নিতে পারত। আমার সেই মেয়ে চলে গেল।”
মেয়ের কফিন ধরে পাইলট পৃথুলা রশিদের বাবা; নেপাল থেকে আসা পৃথুলার লাশ দেশে আসার পর ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে স্বজনদের কাছে তুলে দেওয়া হয়। মেয়ের কফিন ধরে পাইলট পৃথুলা রশিদের বাবা; নেপাল থেকে আসা পৃথুলার লাশ দেশে আসার পর ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে স্বজনদের কাছে তুলে দেওয়া হয়। ইউএস-বাংলার ওই ফ্লাইটের পাইলট আবিদ সুলতান ও ফার্স্ট অফিসার পৃথুলা রশীদও দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। পৃথুলার লাশ নিতে আর্মি স্টেডিয়ামে এসেছিলেন তার বাবা আনিসুর রশীদ ও মা রাফেজা বেগম।

Top