বলিউড তারকাদের ব্যবসা-বাণিজ্য

XX_L20180521152036.jpg

বাংলা ইনসাইডার :
শুধু অভিনয় নয়। অভিনয়ের খ্যাতিটা সবসময় থাকেও না। অথবা অভিনয়ের খ্যাতিটা থাকলেও বাড়তি আয়ের আশায় তাঁরা বিনিয়োগ করে বিভিন্ন ব্যবসায়।
ব্যবসায়িক হিসেবে শাহরুখ খানের নাম প্রথমেই বলা যায়। মার্কেটিংয়ের গুরু বলা হল বলিউডের কিং খানকে। রেড চিলিজের ব্যানারে প্রযোজনা তো করেনই, পাশাপাশি আইপিএল-এর নাইট রাইডার্স দলের মালিকও তিনি। মুম্বাইতে বেশ জনপ্রিয় রেড চিলিজের ভিএফএক্স স্টুডিও। এছাড়াও একটি মার্কেটও রয়েছ তাঁর।
শিল্পা শেঠিও অভিনয়ে নিয়মিত নন। ব্যবসায় এখন মনোযোগ। রাজস্থান রয়্যালস টিমের মালিক। তার স্পা সেন্টারও রয়েছে। নিজেও যোগাভ্যাস করতেও বেশ ভালবাসেন। আর এতেও বেশ ভালই উপার্জন হয় নাকি এ অভিনেত্রীর। মুম্বাইয়ের দরয়্যালটিদ ক্লাবের মালিকও তিনি।
আইপিএল মালকিন প্রীতি জিনতার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানও আছে। সুনীল শেঠীর সারা দেশে ফিটনেস সেন্টার রয়েছে। সুনীল নিজেও একজন ফিটনেস ফ্রিক। এছাড়াও পপকর্ন এন্টারটেনমেন্টের ব্যানারে নিয়মিত চবিতে লগ্নি করেন এ অভিনেতা। রেস্তোরাঁ চেনের মালিকও সুনীল শেঠি। পাশাপাশি মুম্বাইয়ের একটি বুটিকও রয়েছে তাঁর।
প্রাক্তন বিশ্ব সুন্দরী সুষ্মিতা সেন একজন সফল ব্যবসায়ীও। দুবাইয়ে রয়েছে তার গহনার ব্যবসা। এছাড?াও রয়েছে একাধিক হোটেল ও স্পা সেন্টার। তন্ত্র এন্টারটেনমেন্ট নামের একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের মালকিনও তিনি। নভি মুম্বাইয়ে রয়েছে একটি বাঙালি রেস্তোরাঁও, নাম দবাঙালি মাসিদস কিচেনদ
দিল্লিতে ‘ল্যাপ’ নামের একটি রেস্তোরা রয়েছে অর্জুন রামপালের। এছাড?াও রয়েছে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম ‘চেজিং গণেশা’।
ইন্টিরিয়র ডিজাইনার হিসেবে বেশ সুনাম পেয়েছেন টুইঙ্কেল খান্নার। পাশাপাশি লেখক হিসেবেও তার নাম রয়েছে। আর ইদানিং প্রযোজনাতেও মন দিয়েছেন।
বিপাশা বসু সম্প্রতি নিজের ফিটনেস ডিভিডি লঞ্চ করেছেন যা বেশ সাফল্য পেয়েছে। এছাড?াও মালাইকা অরোরা ও সুজান খানের সঙ্গে রয়েছে একটি অনলাইন বিপণি সংস্থা।
বলিউড থেকে বিদায় নেওয়ার পর হোটেল ব্যবসাতেই মন দিয়েছেন দিনো। তার দক্রেপ স্টেশন ক্যাফেদর শাখা সারা ভারতের বড় বড় শহরে আছে। এখানকার প্যানকেক, এগ বেনেডিক্ট নাকি খুবই জনপ্রিয়।
মুম্বাইয়ের দএলবো রুমদ রেস্তোরাঁর মালিক কমোডি অভিনেতা চাঙ্কি পা-ে। মিঠুন মিঠুন চক্রবর্তীও নাকি আছেন রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়। উটি ও মাইসোরে রয়েছে তার জনপ্রিয় রেস্তোরাঁ চেন, যার নাম দমোনার্ক হোটেলদ।
প্রযুক্তি খাতেও রয়েছে তাঁদের আগ্রহ: যেমন অমিতাভ বচ্চন সিঙ্গাপুরভিত্তিক ক্লাউড স্টোরজ এবং শেয়ারিং সল্যুসন ফার্ম জিড্ডু’তে বিনিয়োগ করেছেন। এই কোম্পানিটি বিজ্ঞাপন ও গ্রাহকদের ফাইল শেয়ারিংয়ের সুবিধা দিয়ে আয় অর্থ করে থাকে।
প্রযুক্তিখাতে বিনিয়োগে আগ্রহ রয়েছে সালমান খানেরও। তিনি বিনিয়োগ করেছেন যাত্রা ডটকম নামের একটি অনলাইন ট্রাভেল কোম্পানিতে। ধারণা করা হচ্ছে, কোম্পানির মোট সম্পদের ৫ শতাংশ স্টকের মালিক তিনি।
কারিশমা কাপুর অভিনয় ছেড়েছেন অনেকটা দিন আগে। স্বামীর সঙ্গেও বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছে। এখন মনোযোগি হয়েছেন ব্যবসায়। ইধনুড়ুব.পড়স নামের একটি ই-কমার্স সাইটের মালিক তিনি।
নাচের মাধুরিরও রয়েছে ব্যবসা। তিনি অনলাইনে ‘ড্যানস উইথ মাধুরী’ নামের একটি নাচ একাডেমি চালাচ্ছেন। এটির পুরো মালিকানা তাঁর।
অনিল কাপুর বিনিয়োগ করেছেন অনলাইন ভিডিও সোশাল নেটওয়ার্ক ইনডি’তে। ইনডি ভারতে বেশ জনপ্রিয় একটি ভিডিও ভিত্তিক স্যোশাল সাইট।

Top