মাহে রমজানের সওগাত

images-1.jpg

কক্সবাজার ডেস্ক :

পবিত্র মাহে রমজানের অষ্টাদশ দিবস আজ। রমজান মাসের দ্বিতীয় দশক অর্থাৎ মাগফিরাতের দিনগুলো চলে যাচ্ছে আমাদের কাছ থেকে। মাহে রমজানের সিয়াম সাধনার ফজিলত বা কল্যাণ অপরিসীম-অপরিমেয়। আল্লাহর রসুল (সাঃ) বলেছেন, মানুষ যদি জানতো মাহে রমজান কত বড় নিয়ামত,তাহলে তারা সারা বছর রমজান মাস থাকার আকাংখা করতো। তিনি আরও বলেছেন, রমজানের রোজা ও প্রতি মাসে তিনটি করে রোজা অন্তরের ময়লা – কালিমা দূর করে দেয়। তাই রোজা ভঙ্গের অনুমতি থাকা সত্ত্বেও সাহাবায়ে কেরাম জিহাদের সফরেও রোজা ত্যাগ করতেন না । এমন কি মুসলিম শরীফের বর্ণনা অনুযায়ী কোন কোন সফরে সাহাবায়ে কেরাম দুর্বল হয়ে বেহুস হয়ে পড়েছেন । অবশ্য মহানবী (সাঃ) অধিক কষ্টের সফরে রোজা না রাখাকে উত্তম বলেছেন। হযরত সালমান ফারসী রাদিআল্লাহ আনহু বলেছেন, নবী করীম (সাঃ) শাবান মাসের শেষ দিনে উপদেশ দিয়ে বলেছেন, তোমাদের মাথার উপর এমন একটি মর্যাদাশীল মোবারক মাস ছায়া স্বরুপ আসছে, যার মধ্যে লাইলাতুল কদর নামে একটি রাত আছে, যা হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। আল্লাহ তায়ালা সেই রাত্রে ইবাদত বন্দেগী করাকে তোমাদের জন্য অধিক সওয়াবের কাজ হিসেবে দিয়েছেন। তাছাড়া যে ব্যক্তি এই মাসে একটি নফল ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের আকাংখা করবে সে অন্য সময়ের একটি ফরজ আদায়ের সওয়াব পাবে। আর এ মাসে একটি ফরজ আদায়ের সওয়াব অন্য সময়ের সত্তুর গুণ হবে । মাহে রমজান সবরের মাস , ধৈর্য্যের মাস। আর সবরের প্রতিদান হচ্ছে জান্নাত । মাহে রমজান হচ্ছে মানুষের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশের মাস। এমাসে বেশী বেশী দান খয়রাত, জাকাত সদকা প্রদানের জন্য উৎসাহিত করা হয়েছে। তবে জাকাত সদকার অর্থ বা সম্পদ অবশ্যই হালাল উৎসের রোজগার হতে হবে। এই মাসে চারটি কাজ আল্লাহর রসুল (সাঃ) বেশী বেশী করতে বলেছেন। প্রথম দুটি কাজ হচ্ছে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য । এগুলো হচ্ছে অধিক পরিমানে কালেমা তাইয়েবা ও ইস্তেগফার পাঠ। দ্বিতীয় দুটি কাজ হচ্ছে বেশী বেশী জান্নাত কামনা ও জাহান্নাম থেকে পানাহ চাওয়া। এই মাসে দরিদ্রকে আহার করানো অত্যন্ত সওয়াবের কাজ। রসুল (সাঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোন রোজাদারকে ইফতার করাবে ,সে তাঁর সমান সওয়াব পাবে কিন্তু রোজাদারের সওয়াবের কোন কমতি করা হবেনা । যে ব্যক্তি এমাসে কোন রোজাদারকে পান করাবে,আল্লাহপাক কিয়ামতের দিন তাকে হাউজে কাউসার থেকে পান করাবেন। এর পর জান্নাতে প্রবেশ করা পর্যন্ত তার আর পিপাসা লাগবেনা। মাহে রমজান হচ্ছে মর্যাদা ও কল্যাণময়তার দিক থেকে শ্রেষ্ঠ মাস। মহান আল্লাহ এই মাসের সকল কল্যাণ আমাদের দান করুন!

Top