মাতামুহুরীতে ঢলের পানি বিপদ সীমার উপরে চকরিয়ায় কয়েকটি ইউনিয়নে বন্যা

Zahir-Chakaria-11.06.2018.docxr-1.jpg

চকরিয়া অফিস :
টানা কয়েকদিনের বর্ষণে চকরিয়া উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে বন্যা দেখা দিয়েছে। মাতামুহুরী নদীতে তীব্রভাবে পাহাড়ী ঢল নেমেছে। ঢলের পানি চিরিঙ্গা মাতামুহুরী ব্রীজ পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার ২-৩ ফুট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সড়কের উপর দিয়ে পানি উপচে পড়ায় কয়েকটি অভ্যন্তরীণ সড়ক যোগযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। মাতামুহুরী নদীর উপর চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহা সড়কের চিরিঙ্গা ব্রিজ ঝুকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।
চকরিয়া উপজেলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুদ্দিন মোঃ শিবলী নোমান উপজেলার বরইতলী ও কাকারা ইউনিয়ন পরিদর্শন করে জানান; বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে এ দুইটি ইউনিয়নে বন্যার পানি আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। সুরাজপুর-মানিকপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজিমুল হক জানান; ওই ইউনিয়নের মানিকপুর উত্তর পাড়া ও সুরাজপুর দক্ষিণ পাড়ায় প্রায় ১৮শত বাড়ি ঘরে বন্যায় ঢলের পানি ঢুকেছে। এসব পরিবারের লোকজনকে পাশের পাহাড়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও চকরিয়া পৌর সভার কয়েকটি এলাকা, কৈয়ারবিল, বরইতলী ইউনিয়নের শতশত বসতঘরে পানি উঠেছে। চকরিয়া-মহেশখালী সড়কের বাটাখালী অংশে বন্যার পানি উঠায় ১১জুন এ সড়কে সরাসরি যানবাহন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। চিরিঙ্গা-মগনামা সড়কের পহরচাঁদা থেকে চড়াপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার পর্যন্ত সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। জিদ্দাবাজার-মানিকপুর সড়কও ঢলের পানিতে তলিয়ে গিয়ে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড়ের নির্বাহী প্রকৌশলী সাবিবুর রহমান জানান; চকরিয়ার মাতামুহুরী নদীর তীরের কন্যারকুম, কইজ্যারদিয়া, পুরুত্যাখালী এলাকার বেড়িবাঁধের কিছু অংশ চরম ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সেখানে পানি উন্নয়ন বোর্ড়ের শাখা ও সংশ্লিষ্টরা কর্মকর্তারা ভাঙ্গন ঠেকানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকাও আছে।

Top