এইচএসসি : পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে ঠিক হবে প্রশ্নের সেট

manobkanhta-342.jpg

কক্সবাজার ডেস্ক :

ফাঁস ঠেকাতে আসন্ন এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে লটারির মাধ্যমে প্রশ্নপত্রের সেট নির্ধারণ করা হবে।
মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে এক সভায় এ কথা জানান।
তিনি বলেন, “পরীক্ষার ২৫ মিনিট আগে (প্রশ্নের) সেট নির্ধারিত হবে, লটারির মাধ্যমে ঢাকা বোর্ড সেট নির্ধারণ করবে।”
এসএসসির মত এইচএসসিতেও পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের বাধ্যতামূলকভাবে পরীক্ষার হলে বসতে হবে বলে জানান সচিব।
চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হবে ২ এপ্রিল, তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলবে ১৩ মে পর্যন্ত।
এ পরীক্ষা সামনে রেখে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধি, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা বোর্ডের প্রতিনিধিদের নিয়ে রোববার বৈঠকে বসেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।
গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের ধারাবাহিকতায় এবার এসএসসিতে প্রায় সব বিষয়ের প্রশ্ন পরীক্ষার আগের রাতে বা পরীক্ষার দিন সকালে ফাঁস হয়ে সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।
সচিব সোহরাব বলেন, “পরীক্ষা মানে আমার কাছে এক ধরনের আতঙ্ক। সকল শক্তি, সকল ব্যবস্থা নেওয়ার পরও আমরা নিশ্চিত হতে পারি না যে পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হবে।”
গত এসএসসি পরীক্ষার অভিজ্ঞতার আলোকে বেশ কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানিয়ে সচিব বলেন, প্রত্যেক সেটের জন্য আলাদা প্যাকেট থাকবে, এবার সিলগালা না করে সিকিউরিটি টেপ ব্যবহার করা হবে।
“এ প্রক্রিয়ায় কারও পক্ষে শতভাগ নিশ্চয়তা দেওয়া সম্ভব না যে প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না। তবে ফাঁস রোধে যত ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন নেওয়া হয়েছে।”
ট্রেজারি থেকে একেক কেন্দ্রের দূরত্ব একেক রকম হওয়ায় বৈঠকে একজন পুলিশ কর্মকর্তা কেন্দ্রে প্রশ্ন পৌঁছানোর জন্য ভিন্ন ভিন্ন সময় নির্ধারণের পরামর্শ দেন।
প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে নিজেরা যাতে না জড়ান সে বিষয়ে অভিভাবকদের সচেতন করতে প্রচারণার পরামর্শ দেন আরেক পুলিশ কর্মকর্তা।
এছাড়া মোবাইল ব্যাংকিয়ের মাধ্যমে কোনো নম্বরে সন্দেহজনক লেনদেন হচ্ছে কি না তা সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সরকারকে না জানালে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ আসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে। সবার মতামত নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আপনাদের পরামর্শ গ্রহণ করলাম, পরে তা কাজে লাগাব।”
প্রশ্ন ছাপানো ও বিতরণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোনো সম্পৃক্ততা নেই জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, বোর্ডের চেয়ারম্যান ও সচিবও প্রশ্ন দেখতে পারেন না।
প্রযুক্তির যুগে শতভাগ নিরাপদ একটি ব্যবস্থা করা কঠিন মন্তব্য করে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনা তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, অপরাধ করার জন্য ভালো জ্ঞানও খারাপ কাজে লাগানো যায়।
তিনি বলেন, বরাবরের মতই পরীক্ষা কেন্দ্রে কেউ মোবাইল নিয়ে ঢুকতে পারবেন না। কেউ মোবাইল নিয়ে প্রবেশ করলে আইনের আওতায় পড়বেন।
কত সেট প্রশ্ন ছাপিয়ে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে আগে সরকারের পক্ষ থেকে তা জানানো হলেও এবার থেকে সে তথ্য গোপন রাখা হবে।
নাহিদ বলেন, “এটা নিশ্চিত থাকেন, অনেক সেট প্রশ্ন হবে, তবে কত সেট প্রশ্ন হবে সেটা কেউ জানতে পারবে না। আমরা আগে বলতাম, এখন বলব না, এটা আমাদের কৌশলগত ব্যাপার।”
পরীক্ষাকক্ষে ৩০ মিনিট আগে ঢোকার বাধ্যবাধকতা প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, যুক্তিসঙ্গত কারণে কেউ দেরি করলে তার নাম রেজিস্ট্রারে লিখে ওই দিনই তা বোর্ডকে জানাতে হবে। পরের দিনও ওই শিক্ষার্থী দেরি করেছে কি না বোর্ড তা দেখবে। সন্দেহ হলে বোর্ড সিদ্ধান্ত দেবে, ওই শিক্ষার্থী আর পরীক্ষা দিতে পারবে না।
এসএসসিতে পরীক্ষার দিন সকালে এমসিকিউ অংশের কিছু প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে জানিয়ে সচিব সোহরাব দাবি করেন, রচনামূলক প্রশ্নের ৭০ নম্বরের প্রশ্ন ফাঁস হয়নি। যখন এমসিকিউ প্রশ্ন আউট হয় তখন অধিকাংশ পরীক্ষার্থী হলে ছিল।
কিন্তু এ নিয়ে গণমাধ্যমে একের পর এক প্রতিবেদন আসায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সরকারের ‘ইমেজ সঙ্কট’ তৈরি হয়েছে বলে মন্তব্য রেন সচিব।
“গড়ে সাড়ে ৭ নম্বরের প্রশ্ন (গত এসএসসিতে) আউট হয়েছে, এতে খুব কম সংখ্যক পরীক্ষার্থী প্রভাবিত হয়েছে। পাঁচ হাজারের মত পরীক্ষার্থী প্রভাবিত হয়েছে, এদের মধ্যে অনেকেই গ্রেপ্তার হয়েছে।”
কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান ছাড়াও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন দুটি বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

Top