নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে জামায়াত

download-15.jpg

কক্সবাজার রিপোর্ট :
আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজারের ৩টি আসনে জোটগত কিংবা (স্বতন্ত্র ) নির্বাচনে লড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে জামায়াত। ইতোমধ্যে তারা কেন্দ্র ভিত্তিক কার্যক্রম শুরু করেছে। দলীয়ভাবে কোন ঠাসা হয়ে থাকলেও সাংগঠনিক কার্যাক্রম সচল রয়েছে বলে জানালেন জামায়াতের জেলা পর্যায়ের একজন শীর্ষনেতা।
আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজারে ৪টি আসনের মধ্যে অন্তত ২টি আসনে জামায়াতের প্রার্থীকে ২০ দলীয় জোট সমর্থন না দিলে ৩টি আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে জামায়াত। রাজনৈতিক পরিস্থিতি কিছুটা স্থিতিশীল হওয়ার সাথে সাথেই জামায়াতের দলীয় সাংগঠনিক তৎপরতাও জোরদার করেছে সংগঠনটি। তারা ইতোমধ্যে কক্সবাজার-১, কক্সবাজার-২ ও কক্সবাজার -৩ আসনে গোপন তৎপরতা বৃদ্ধি করেছে।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায় দেশের যে কয়টি জেলায় জামায়াতের শক্ত অবস্থান রয়েছে এতে কক্সবাজার অন্যতম। ১৯৯১ সালের সংসদ নির্বাচন থেকে প্রতিটি নির্বাচনে দলটি সন্তোষজনক ফলাফল করে আসছে। ৯১ সালের সংসদ নির্বাচনে জামায়াত একক ভাবে নির্বাচন করে কক্সবাজার-১ আসনে জয়লাভ করে। কক্সবাজার-২ আসনে তীব্র প্রতিদ্বন্দীতা করে হেরে যায়, কক্সবাজার-৩ আসনে মাত্র ২ হাজার ভোটে পরাজিত হয় জামায়াত দলীয় প্রার্থী।
জেলা ছাত্র শিবিরের সাবেক একজন শীর্ষনেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, মহেশখালী-কুতুবদিয়া ও কক্সবাজারদ সদর-রামু আসন জামায়াতের পছন্দের তালিকায় রয়েছে। সারাদেশে জামায়াতের যে ৫৫টি আসনে নির্বাচনের জন্য ২০ দলীয় জোট থেকে আসন চাইবে ওই আসনের মধ্যে কক্সবাজারের এই ৩টি আসন থাকবে। সর্বশেষ কক্সবাজার-২ ও কক্সবাজার-৩ আসন দাবী করা হবে। গত পৌর নির্বাচন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জামায়াত অংশগ্রহন করে ভাল ফলাফল করেছে। কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান এবং কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র জামায়াত পদে জয়লাভ করেছে। জামায়াতের অবস্থান আগের চেয়ে কোন ক্রমেই দুর্বল হয়নি এমন দাবী করো তিনি বলেন, নির্বাচন হলেই প্রমান হবে জামায়াতের অবস্থান।
আগামি সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজার-১ আসন থেকে আরিফুর রহমান চৌধুরী মানিক, কক্সবাজার-২ আসন থেকে হামিদুর রহমান আজাদ ও কক্সবাজার-৩ আসন থেকে সলিমুল্লাহ বাহাদুরই দলের সম্ভাব্য প্রার্থী।
জামায়াত নেতা সাবেক চেয়ারম্যান জাবের আহমদ চৌধুরী জানিয়েছেন, জামায়াত সু-শৃংখল একটি দল। আমাদের চেইন অব কমান্ড ঠিকই আছে। আমাদের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। জামায়াত আগের চেয়ে জনসমর্থনে আরো শক্তিশালী হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, যদি ২০ দলীয় জোট নির্বাচনে যায় কিংবা এককভাবে নির্বাচন করে এতে জয়ের জন্যই নির্বাচন করবে জামায়াত।
জেলা জামায়াতের সেক্রেটারী জেনারেল সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম রহিমুল্লাহ জানিয়েছেন, কেন্দ্রিয়ভাবে যে সিদ্ধান্ত আসবে এটিই চুড়ান্ত। তবে নির্দেশনা মোতাবেক নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে জামায়াত। যদি সব দল নির্বাচনে অংশগ্রহন করে তখন ২০ দলীয় জোট থেকে হউক বা (স্বতন্ত্র) জামায়াত প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করবে জামায়াত।

Top