চকরিয়ায় সাফারি পার্কের ইজারাদারের বিরুদ্ধে মামলা

download-3-3.jpg

চকরিয়া অফিস :

চকরিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের ইজারাদার ও দর্শনাথীসহ ৯জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন পার্ক কর্তৃপক্ষ। চকরিয়া সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পার্কের তত্তাবধায়ক রেঞ্জার কেএম মোরশেদুল আলম বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেছেন। ইজারাদারেরা দাবী করেছেন, কিছুদিন আগে বাতাসে গাছ পড়ে পাখির একটি মুরাল ভেঙ্গে যায়। ওই ভাঙ্গা মুরালটি আমরা ভাংচুর করেছি বলে দাবী করে এ মামলাটি দায়ের করেছেন।
ইজারাদার মোঃ রফিক উদ্দিন জানান; গত মঙ্গলবার সাফারি পার্কের রেঞ্জার েেকএম মোরশেদুল আলম ও বিট কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম দেড়লাখ টাকা ঘুষের দাবীতে পার্কের গেট বন্ধ রাখেন। দর্শনার্থীরা দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও পার্কে ঢুকতে না পেরে হট্টগোল শুরু করে। এসময় রেঞ্জ কর্মকর্তার নেতৃত্বে দর্শনার্থীদের উপর ৫ রাউন্ড গুলি ছোঁড়া হয়। এ ঘটনায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় ১০জন দর্শনার্থী আহত হয়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রেঞ্জ কর্মকর্তা কেএম মোরশেদুল আলম বাদী হয়ে ইজারাদার মোঃ রফিক উদ্দিন ও দর্শনার্থীসহ ৯জনের নাম উল্লেখ করে চকরিয়া সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
ইজারাদার মোঃ রফিক উদ্দিন জানান, পাখির একটি মুরাল ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে বলে এ মামলায় দাবী করা হলেও ওই মুরালটি ভেঙ্গে বাতাসে গাছ পড়ে। তিনি আরও বলেন, আগামী কিছুদিন পর সাফারি পার্কের গেটের আবার টেন্ডার দেয়া হবে। টেন্ডারে যাতে আমরা অংশ নিতে না পারি সেজন্যে পার্ক কর্তৃপক্ষ ষড়যন্ত্র করছে। ওই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে এ মামলাটি দায়ের করেছেন। মঙ্গলবারের ঘটনার পর থেকে দর্শনার্থীরা পার্কে প্রবেশ করছেন না। এতে ইজাদারেরা অনেক ক্ষতির শিকার হবে বলে আশংকা করছেন। ইজাদারের বলেছেন; গাজী পুরের সাফারি পার্ক ঈদ উপলক্ষে খোলা ছিল। কিন্তু ডুলাহাজারা সাফারি পার্ক কর্র্তৃপক্ষ ১লাখ ৫০ হাজার টাকা ঘুষের দাবীতে এই পার্কের গেট বন্ধ রাখে। তারা বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করারও দাবী জানান।

Top