চকরিয়ায় স্কুল ছাত্র পিটুনির ঘটনায় সেই শিক্ষককে সাময়িকভাবে বহিষ্কার

download-4-4.jpg

স্টাফ রির্পোটার, চকরিয়া :

চকরিয়ায় এক শিক্ষার্থীকে পিঠুনির ঘটনায় সেই শিক্ষককে সাময়িকভাবে বহিস্কার করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি পিঠুনির শিকার স্কুল ছাত্রকে এক বছর বিনা বেতনে পড়ার সুযোগের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। ১১ জুলাই বুধবার চকরিয়া বিএন স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ এ সিদ্বান্ত নিয়েছেন।
জানা গেছে, গত ৯জুলাই বিএন স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক সওকতুল ইসলাম ৮ম শ্রেণির ছাত্র উত্তম দাশকে নিয়মিত স্কুলে না আসায় এবং পড়ালেখায় অমনোযুগির কারণে পিঠুনি দেন। এতে আহত হয় ওই শিক্ষার্থী। এঘটনায় উত্তমের অভিভাবক ক্ষুব্ধ হয়ে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিষয়টি অবহিত করেন। এরপ্রেক্ষিতে গত ১১জুলাই বিএন স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ বিষয়টি আমলে নিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক সওকতুল ইসলামকে সাময়িকভাবে বহিস্কার করেন। একইদিন স্কুল কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষক শিক্ষিকা আহত স্কুল ছাত্রের বাসায় দেখতে যান। এসময় অভিযুক্ত শিক্ষককে যথাযথ শাস্তির বিষয়টি অভিভাবককে জানানো হয় এবং ওই ছাত্রকে এক বছরের জন্য বিনাবেতনে পড়ার সুযোগ দেয়ার আশ্বাস দেন স্কুল কর্তৃপক্ষ।
এদিকে বিএন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আতাউল্লাহ জানান, তার প্রতিষ্ঠানের এক শিক্ষক ছাত্রকে পিঠুনির ঘটনাটি খুবই দূ:খজনক। ওই শিক্ষককে সাময়িক ভাবে বহিস্কার করা হয়েছে। তার বহিস্কারের একটি চিঠি চকরিয়া উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার বরাবরে পাঠিয়েছি।
তিনি আরও বলেন, স্কুলটি তিলে তিলে গড়া তোলা হয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট হউক তা আমরা চাই না। পরিচালনা পরির্ষদের সিদ্বান্তে স্কুল ছাত্রকে এক বছরের জন্য বিনাবেতনে পড়ার সুযোগ করে দিয়েছি। তাই কোন ধরণের বিভ্রান্তি না হওয়ার জন্য সকল অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে অনুরোধ করছি।

Top