সহপাঠির হত্যাকারীর ফাঁসির দাবীতে রাস্তায় নামলো শিশু শিক্ষার্থীরা

news-nihad-12-7-18.doc.jpg

কক্সবাজার রিপোর্ট :
কক্সবাজারে শিশুদের মধ্যে ঝগড়াকে কেন্দ্র করে খুন হওয়া ৪র্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী সাহাব উদ্দিনের হত্যাকারীর ফাঁসির দাবীতে রাস্তায় নামলো সহপাঠিরা। এসময় তারা বেশ কিছুক্ষণ সড়ক অবরোধ করে রাখে। তাদের বিক্ষোভ সমাবেশে সংহতি জানিয়ে উপস্থিত হয় এলাকার শত শত মানুষ।
সূত্রমতে, গত বুধবার বাসটার্মিনাল লারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ শ্রেণীর দুই সহপাঠিদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এই ঘটনার জের ধরে এক সহপাঠির অভিভাবকের হাতে নির্মমভাবে খুন হয় শিশু সাহাব উদ্দিন। তাঁর বাড়ি শহরের বিজিবি ক্যাম্প এলাকায়। এঘটনার পরপরই হত্যাকান্ডে অভিযুক্ত শফিকুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ।
এদিকে বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটার দিকে কক্সবাজার শহরের বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় সহপাঠির হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে প্রধান সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে লারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এতে যোগ দেয় এলাকার শত শত মানুষ। এসময় প্রায় এক ঘন্টা সড়ক অবরোধ ছিল। পরে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দীন খন্দকার উপস্থিত হয়ে বিক্ষুব্ধ জনগণকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। অবরোধে অংশ নেওয়া এক শিশুর নাম সাজিয়া সুলতানা। সে লারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিহত সাহাব উদ্দিনের সাথে ৪র্থ শ্রেণিতে পড়ে। সে বলে, ‘আমাদের সহপাঠিকে খুন করা হয়েছে। আমরা খুনির ফাঁসি চাই।’
নিহতের বড়বোন সেলিনা আক্তার (৩০) বলেন, ‘ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ হত্যাকারীকে আটক করা আমরা পুলিশকে সাধুবাদ জানায়। কিন্তু কোনভাবে যেন সে রেহায় পেয়ে না যায়। আমরা হত্যাকারীর ফাঁসি দেখতে চাই।’
এদিকে ঘটনার পর পরই জনগণের সহযোগিতায় পুলিশ হত্যাকারী শফিকুল ইসলামকে আটক করে। তিনি লারপাড়া এলাকার মাসুদ মিয়ার ছেলে। শুধুমাত্র শফিকুল ইসলামকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করে নিহত সাহাব উদ্দিনের বড়ভাই। পরে পুলিশ ওই মামলায় আজ (বৃহস্পতিবার) আসামী শফিকুল ইসলামকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে। কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দীন খন্দকার বলেন, এলাকার লোকজন বিকাল তিনটার দিকে বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। এরমধ্যে স্কুল পড়–য়া শিক্ষার্থীরা। পরে তাদেরকে বুঝিয়ে সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়। তিনি আরও বলেন, নিহতের বড়ভাই মামলায় শুধুমাত্র শফিকুলকেই আসামী করেছে। আজ (বৃহস্পতিবার) তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

Top